মানসিক সমস্যায় ভূগছেন হানি সিং

ভারত তথা সারা বিশ্বে নিজের গান দিয়ে শ্রোতা মাতিয়েছেন জনপ্রিয় র‌্যাপার হানি সিং। ধারাবাহিকভাবে একের পর এক হিট-সুপারহিট গান উপহার দিয়েছেন। বলিউডের ছবিতে হানি সিংয়ের অন্তর্ভুক্তি হয়ে উঠে অন্যতম চমক।

অমিতাভ বচ্চন থেকে শুরু করে শাহরুখ খান, অক্ষয় কুমার, অজয় দেবগান, কারিনা কাপুরসহ অনেক তারকার সঙ্গে পারফর্ম করেছেন তিনি। গত বছরের শেষের দিকে সর্বশেষ ‘ধীরে ধীরে’ শীর্ষক হানি সিংয়ের মিউজিক ভিডিও ভারতের ইউটিউবের ইতিহাসে রেকর্ড গড়ে। ১২ কোটিরও বেশি দর্শক এখন পর্যন্ত গানটি উপভোগ করেছেন।

কিন্তু বলিউডের গানের এই হিট মেশিন কিনা ভূগছেন মানসিক সমস্যায়! বিষয়টি অবাক করার মত হলেও সত্যি। এমনকি মাস খানেক ঘরের বাইরেও বের হননি তিনি। সব ধরনের কাজ থেকে দূরে সরে ছিলেন। তার এই রোগের নাম ‘বাইপোলার ডিজওর্ডার কিংবা মানসিক চাপ’। তবে যেন তেন নয়, তীব্র মানসিক চাপের কারণে হানি সিং শারিরীক ভাবেও অসুস্থ ছিলেন। নতুন কোন গানও রেকর্ড করতে পারেননি। তবে অনেক দিনের বিরতির কারণ আজ নিজের জন্মদিনে প্রকাশ করলেন এ তারকা। এ বিষয়ে তিনি বলেন, এতদিন আমি আমার অনুপস্থিতির কারণ বলিনি। কিন্তু আজ আমার জন্মদিনে ভক্তদের কারণটা জানাতে চাই।

আর সেটা হচ্ছে আমি মানসিক চাপজনিত রোগে ভূগছি। আমি দিল্লীর চারজন চিকিৎসকের তত্বাবধানে চিকিৎসা করছি। মূলত দীর্ঘ সময় ধরে মানসিক চাপে ভূগলে এক সময় এটা ম্যানিয়ায় পরিণত হয়। মানসিক এই ম্যানিয়া চরম আকার ধারণ করেছে। যেখানে আমি ২০ হাজার দর্শকের সামনে বসে গান করি। কিন্তু ম্যানিয়ার পর চারজন মানুষের সামনেও ভয় পেয়েছি আমি। আমি মনে করি আমি শ্রোতাদের সম্পত্তি, তাই আজ সত্যিটা প্রকাশ করলাম। আবার মধ্যে সমালোচকরা বলেছিলো আমি নাকি অতিরিক্ত মদ্যপান করে রিহ্যাবে আছি। এটা সত্যি কস্টকর। কারণ আমি কি ধরনের ম্যানিয়ায় ভূগছি, এটা কেবল আমি জানি। তবে এখন আমি অনেকটাই সুস্থ। কথা দিচ্ছি খুব শিগগিরই ফিরছি।

১ কোটি ৭৮ লাখ টাকা ফেরত পাচ্ছে বাংলাদেশ

বিদেশি অর্থ স্থানান্তরের ফিলিপিনো কোম্পানি ফিলরেম (PhilRem Service Corporation) তাদের ভুল স্বীকার করেছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি যাওয়া রিজার্ভের যে ৮১ মিলিয়ন ডলার তারা স্থানান্তর করেছিল তার লভ্যাংশ হিসেবে ১০.১৭ মিলিয়ন পেসো’র (ফিলিপিনো মুদ্রা) বা প্রায় ১ কোটি ৭৮ লাখ ২৭ হাজার টাকার একটি চেক তারা বাংলাদেশকে দেবে বলে জানিয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ফিলিপাইনে সিনেটের শুনানিতে ফিলরেম সার্ভিস করপোরেশনের সভাপতি সালুদ বাউতিস্তা বলেন, তাঁরা ওই অর্থ বাজেয়াপ্ত করতে চেয়েছিলেন। প্রথমে তাঁরা প্রশ্নবিদ্ধ ওই অর্থ পেসোতে রূপান্তরের ব্যাপারে আগ্রহীও ছিলেন না।

সিনেটে শুনানির সময় সালুদ বলেন, ‘আমরা দুঃখিত। বাংলাদেশ সরকারের কাছে তাদের প্রতিষ্ঠান ১০ মিলিয়ন পেসোর একটি চেক পাঠাবে। এটা ওই নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ রূপান্তরের তাঁদের প্রতিষ্ঠানের লাভের এক শতাংশের চার ভাগের এক ভাগ।’ সালুদ দাবি করেন, তাঁদের প্রতিষ্ঠান ফিলরেম জানত না যে এই টাকা বাংলাদেশ থেকে চুরি করে আনা হয়েছিল।

শুনানির সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত ফিলিপাইনের রাষ্ট্রদূত রিচার্ড গোমেজ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

বিপিএল থেকে বাদ পড়ে চমক লাগানো বক্তব্য দিলেন তামিম ইকবাল।

ভেবেছিলাম, মাত্র দুটো ম্যাচ রয়েছে। যদি জিততে পারি…’। চিটাগং আজ জিতলে পয়েন্ট টেবিলের হিসাব-নিকাশ অন্যরকমই হতে পারত। তা আর হলো কোথায়! যেদিন আমি আর দিলশান ভালো করেছি, সেদিন জিতেছি। দুটো জয় এসেছে এমনভাবেই।’ জানালেন চিটাগং ভাইকিংস অধিনায়ক তামিম ইকবাল। ৯ ম্যাচে ৭ হারে আক্ষরিক অর্থেই নিভে গেল চিটাগংয়ের আশার বাতি।অথচ চিটাগংয়ের টুর্নামেন্ট শুরু হয়েছিল বিরাট প্রত্যাশা নিয়েই। দেশি-বিদেশি মিলে সবচেয়ে ভারসাম্য দলই হয়েছিল তাদের। শুরু থেকেই জ্বলে উঠেছিলেন অধিনায়ক নিজেও। টুর্নামেন্টের শেষ পর্যায়ে এসেও তামিমের পারফরম্যান্সে ছিল ধারাবাহিকতার ছাপ।৩ ফিফটিতে ২৯৮ রানে এখনো পর্যন্ত সবার ওপরে বাঁহাতি ওপেনার। তামিমের সঙ্গে মাঝেমধ্যে সঙ্গত করেছেন লঙ্কান ওপেনার তিলকরত্নে দিলশান। ৯ ম্যাচে ১ ফিফটিতে দিলশানের রান ২৩২। তবে দুই ওপেনার বাদে আর বলার মতো পারফরম্যান্স নেই চিটাগংয়ের কোনো ব্যাটসম্যানের।বোলারদের মধ্যে মোহাম্মদ আমির ও শফিউল ইসলাম যা একটু আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন। আমির পেয়েছেন ১৪ উইকেট, শফিউল ১৩। তবে এক-দুজনের পারফরম্যান্সে দুই-একটা ম্যাচ হয়তো জেতা যায়। ধারাবাহিক সাফল্য পাওয়া কঠিনই। সবার আগে শেষ চারে পা রাখা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা যেমন বলেছেন, ‘ধারাবাহিক সাফল্য পেতে পারফর্ম করতে হবে দল হিসেবে’। একই কথার প্রতিধ্বনি সবার আগে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নেওয়া চিটাগং অধিনায়ক তামিমেরও, ‘যেদিন আমি আর দিলশান ভালো শুরু করেছি, ওই দিন হয়তো ভালো কিছু হয়েছে’। দুটি ম্যাচে জিতেছি এভাবেই। আর কোনো ম্যাচে তেমন কোনো জুটিও দেখিনি। স্থানীয় বলেন আর বিদেশি— তেমন কিছু দেখিনি। সত্যি খুবই হতাশাজনক।এটা দলীয় খেলা, এখানে নির্দিষ্ট কোনো খেলোয়াড়ের ওপর নির্ভর করা যায় না। খেলোয়াড়দের সবাইকেই পারফর্ম করতে হবে। মাশরাফি কালই বলেছিলেন, তার দলের সাফল্যের মূলে স্থানীয় খেলোয়াড়দের নিয়মিত জ্বলে ওঠা।এটার খুব অভাব ছিল চিটাগংয়ে। শফিউল বাদে আর কোনো স্থানীয় বোলার ৫ উইকেটও পাননি। ব্যাটসম্যানদের অবস্থাও তথৈবচ। স্থানীয়দের নিষ্প্রভ থাকায় চিটাগং কতটা ভুগেছে, সেটিই ব্যাখ্যা করলেন তামিম, ‘স্থানীয়দের মধ্যে যারা গুরুত্বপূর্ণ ছিল, হয়তো চেষ্টা করেছে। তবে পারফরম্যান্স ঠিকমতো হয়নি’। আর পারফরম্যান্স ভালো না হলে জেতাটা কঠিন হয়ে যায়। দলে বড় বড় বিদেশি খেলোয়াড় নিতে পারেন, তবে স্থানীয়রা পারফর্ম না করতে পারলে জেতার সুযোগ কমে যায়।স্থানীয় খেলোয়াড়দের সহায়তা আপনার অবশ্যই লাগবে। বরিশালকে দেখেন, গেইল-লুইস থাকার পরও ৫৮ রানে গুটিয়ে গেছে। আমাদের এই জায়গায় সমস্যা ছিল। যতটা ভালো করার কথা ছিল, স্থানীয় খেলোয়াড়দের ততটা করেনি। শফিউলই যা একটু ভালো করেছে। ​​ওকেও বেশির ভাগ সময়ই কঠিন সময়ে বল করতে হয়েছে।তবে তামিমের পুরোপুরি সন্তুষ্ট ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রতি। চিটাগং অধিনায়কের বড় আফসোস, মালিক পক্ষের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি। পরেরবার একই দলে খেলা ও ভালো কিছুর আশা নিয়ে আপাতত টুর্নামেন্ট শেষ করতে হচ্ছে তামিমকে। সেটি হয়তো শেষই হয়ে গেল কাল। চোটের কারণে দলের শেষ ম্যাচে না-ও খেলতে পারেন চিটাগং অধিনায়ক।

কি আছে প্রেসিডেন্ট ওবামার পার্সোনাল বিমান এ দেখুন ভিডিও-

কি আছে প্রেসিডেন্ট ওবামার পার্সোনাল বিমান এ দেখুন ভিডিও-

U.S. President Barack Obama walks from Air Force One upon his arrival in Denver, Colorado October 24, 2012. Obama is on a two-day, eight state, campaign swing. REUTERS/Kevin Lamarque (UNITED STATES – Tags: POLITICS ELECTIONS USA PRESIDENTIAL ELECTION)

বেকারদের জন্য সুবর্ণ সুযোগ, ফেসবুক দিচ্ছে ২৫ থেকে ১২৫০ ডলার ঋণ, যেকেউ নিতে পারেন এই সুবিধা-

বেকারদের জন্য সুবর্ণ সুযোগ,বিনাপুজিতে ফেসবুকের সাথে চুক্তি করুন, খুব সহজেই আপনি এটা করতে পারেন,যেকেউ এই সুবিধা নিতে পারেন ফেসবুক আইডি থাকলে,কিভাবে কি করবেন জেনে নিন বিস্তারিত। এই লেখাটি পড়ার আগেই অনেকে হয়তো অনেক রকম মন্তব্য করবেন কিন্তু পুরো লেখাটি পড়ার পর সবাই বুঝতে পারবেন। ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ প্রতিনিয়ত ফেসবুক ব্যাবহারকারীদের জন্য নিয়ে আসছেন নতুন নতুন ফিচার আগে যেখানে সাড়ে সাতশো ডলার ঋণ নেওয়া যেত এখন থেকে সেটা সাড়ে বারশত পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে।

হ্যাঁ একটু কঠিন মনে হচ্ছে তাহলে গল্পকারে পড়ুন আপনাদের বুঝতে সুবিধা হবে। ইভা নামের একজন ছাত্রী তার কোন একজন বন্ধুর কাছে শুনলেন ফেসবুকের মাধ্যমে যেকোন পন্য বেচাকেনা কিংবা যেকোন কিছুর বিজ্ঞাপন চালানো যাই, এইজন্য নাকি ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপ আছে, ইভার কিছু ব্যাগ আছে যেগুলো সে বিক্রি করতে চাই,কিন্তু বিজ্ঞাপন দেবার মতো কোন টাকা তার কাছে নেই,আজকাল ফেসবুক সবাই ব্যাবহার করে তাই ইভা বিভিন্ন মেয়েদের গ্রুপে তার ব্যাগের বিজ্ঞাপন দিতে থাকে কিন্তু গ্রুপের অন্য মেয়েরা ইভার বিজ্ঞাপন দেখার সাথে সাথেই রিপোর্ট করে মুছতে ফেলে।

ইভা যথেষ্ট হতাশ হয়ে পড়ে কিন্তু হাল ছাড়েনি,ইভা শুনেছিলো ফেসবুক পেজের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়া যাই তাই সে একটি ফেসবুক পেজ চালু করে কিন্তু পেজে লাইক খুব বেশী নাই,বন্ধুদের কে ইনভাইট করে তবুও লাইক বাড়ে না, পেজে পোস্ট বুস্ট এবং পেজ প্রমোট অপশন আছে কিন্তু এগুলো করতে হলে ফেইসবুককে ডলার দিয়ে করতে হবে। ইভা একটি কার্ডের জন্য ব্যাংকে গিয়েছিলো কিন্তু ডুয়েল কারেন্সির কোন মাস্টারকার্ডে কিংবা ভিসা কার্ড ব্যাংক তাকে দেইনি তবুও পিছু হটেনি ইভা। সর্বশেষ এক বন্ধুর কাছে শুনলো আন্তজাতিক বিভিন্ন অনলাইন মার্চেন্ট বিনামূল্যে মাস্টারকার্ড দিয়ে থাকে।

ইভা একটি পেওনিয়ার কার্ডের জন্য আবেদন করলো,ইভার আবেদন অনুমোদন হবার পর এক মাসের ভিতরে মাস্টারকার্ড পোস্ট অফিসের মাধ্যমে তার হাতে চলে এলো. ইভা মহাখুশি এখন থেকে সে এই কার্ডের মাধ্যমে ফেসবুকে প্রমোশন চালাতে পারবে, ইভা তার এই পেওনিয়ার কার্ড ফেসবুকে পেজে সংযুক্ত করার সাথে সাথেই ফেসবুক গ্রহণ করলো এবং 25 ডলার ঝরণা দিলো সর্বপ্রথম অর্থাৎ এই 25 ডলার খরচ করার পর মাস শেষে তাকে বিল দিতে হবে।

প্রথমদিনেই ইভা পাচ ডলারের বিজ্ঞাপন দিয়ে অর্ডার পেলো ত্রিশ টা, এই পচিঁশ ডলার খরচ করার আগেই ইভা শুধু ব্যাগ বিক্রি করে লাভ করলো প্রায় পনেরো হাজার টাকা। ফেইসবুককে এই 25 ডলার বিল দেবার সাথে সাথেই ইভা পেলো আরো 50 ডলার ঝণ, এই 50 ডলারের ইভা পাঁচদিনেই খরচ করলো. ফেইসবুককে 50 ডলার বিল দেবার পর ফেসবুক থেকে ইভাকে আরো 250 ডলার ঝণ দিলো. ইভা এই 250 ডলার খরচ করে তার সমস্ত ব্যাগ বিক্রি করে ফেললো, তার সর্বমোট লাভ দাড়ালো 60 হাজার টাকা. নিচে পেওনিয়ার কার্ডের একটি ছবি এবং ফেসবুকের ঝণের বিল দেখুন ইভা 250 ডলার ফেসবুকের বিল দেবার পর ঝণ পেয়েছে 500 ডলার, ইভার ব্যাবসা দিনে দিনে বেড়েই চলেছে শুধু ব্যাগ নয় আরো অনেক কিছুই যুক্ত করেছেন,ইভার সাথে কাজ করার জন্য আরো কয়েকজন মেয়েকেও নিয়েছেন. ইভা 500 ডলার ফেসবুকের ঝণ শোধ করার পর আবারো ঝণ পেয়েছে 750 ডলার,ইভা এখন এই ডলার দিয়ে নিজের পণ্যের বিজ্ঞাপন ছাড়া অনেক কোম্পানির বিজ্ঞাপন দিয়ে দেই,যেহেতু মেয়ে সেহেতু অনেকেই ইভার কাছে বিজ্ঞাপন দিতে আসে,অনেক তারকারাও তাদের পেজে লাইক বাড়ানোর জন্য ইভার দারস্ত হয়. ইভা 750 ডলার ঝণ খরচ করার পর ফেইসবুককে আর বিল দেইনি, একটু চালাকি করে ফেইসবুককে মেসেজ পাঠিয়েছে,ইভা ফেইসবুককে লিখেছিলো আমার ব্যবসা খারাপের যাচ্ছে আমি এই ঝণ পরে শোধ করবো।

ফেসবুক খুলে দেয়ার বিষয়ে যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, বিশেষ পরিস্থিতি কারণে ফেসবুক বন্ধ রাখা হয়েছিল। নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা এরই মধ্যে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠক করেছি। তাই অচিরেই খুলে দেয়া হবে ফেসবুক। মঙ্গলবার দুপুরে ফেনী সার্কিট হাউজে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ স্বাধীন। নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষভাবে নির্বাচনী কাজ পরিচালনা করছে। মানুষ যাকে ভোট দেবেন তিনি নির্বাচিত হবেন। এখানে কারচুপি হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বর্তমানে নির্বাচন কমিশনের ওপর ন্যাস্ত রয়েছে। তিনি বলেন, জঙ্গিরা সারাবিশ্বের জন্য গ্লোবাল থ্রেড। আমেরিকা, ফ্রান্স, অষ্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের মতো বড় বড় শহরগুলোতে জঙ্গি হামলা হচ্ছে। সে তুলনায় বাংলাদেশ অনেক ভালো অবস্থানে। নিরাপত্তা বাহিনী অনেক ভালো কাজ করছে। মাঝে মাঝে দু’একটি ঘটনা ঘটছে, কিন্তু আমার শক্ত হাতে ব্যবস্থা নিচ্ছি। এসময় ফেনী-২ আনের সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী, জেলা প্রশাসক মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার, পুলিশ সুপার রেজাউল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুর রহমান, ফেনী পৌরসভার মেয়র আলাউদ্দিনসহ দলীয় নেতাকর্মীরা

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে দেখা যাব মুস্তাফিজকে : মাশরাফি – See more at: http://www.kalerkantho.com/online/sport/2016/03/17/336871#sthash.goL4xn9Q.dpuf

এলোমেলো বোলিংয়েই পাকিস্তানের কাছে ম্যাচটা হাতছাড়া হয়েছে বাংলাদেশের। বুধবার টি-২০ বিশ্বকাপের সুপার টেন পর্বে বাংলাদেশ-পাকিস্তান ম্যাচ শেষে মুস্তাফিজুর রহমানকে মাঠে না পাওয়ার আক্ষেপটা বড় বেশি বেজেছে বাংলাদেশ শিবিরে। পাকিস্তানের বিপক্ষে এই তরুণ পেসার একাদশে থাকবেন তেমন আশাতেই ছিলেন বাংলাদেশের ভক্তরা। কিন্ত ইডেনে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতেও খেলা হয়নি মুস্তাফিজের। তাই পাকিস্তানের কাছে ৫৫ রানে ম্যাচ হারার পর সংবাদ সম্মেলনে এর ব্যাখ্যাও দিতে হয়েছে বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে। সেখানে মাশরাফি জানিয়েছেন, আগামী ২১ মার্চ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচেই মাঠে দেখা যাব কাটার মাস্টার মুস্তাফিজকে।

সংবাদ কর্মীদের প্রশ্নের উত্তরে মাশরাফি বলেন, মুস্তাফিজ এই ম্যাচে (পাকিস্তানের বিপক্ষে) খেলার খুব কাছেই ছিল। শেষ পর্যন্ত তাকে নিতে পারিনি। ওকে নিয়ে আমরা বিন্দুমাত্র ঝুঁকি নিতে চাইনি। এ জন্যই একাদশে রাখা হয়নি।

মুস্তাফিজ সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, মুস্তাফিজ দলের সেরা বোলার। আমরা খুব করে চাইছিলাম যে আজকের ম্যাচটি খেলুক। প্রথম ম্যাচ সব সময়ই কঠিন। কিন্তু আমরা এটাও চাই যে পুরোপুরি সুস্থ হলেই কেবল তখন সে খেলবে। আজকের ম্যাচে সে খুব কাছেই ছিল। আশা করছি, পরের ম্যাচেই (অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে) সে খেলবে।

প্রসঙ্গত, সাইড স্ট্রেইন ইনজুরির কারণে প্রায় ২ সপ্তাহ মাঠের বাইরে রয়েছেন বাংলাদেশের বোলিং বিস্ময় মুস্তাফিজুর রহমান।

 

– See more at: http://www.kalerkantho.com/online/sport/2016/03/17/336871#sthash.goL4xn9Q.dpuf

আজ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস

আজ ১৭ মার্চ, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৬তম জন্মবার্ষিকী। সরকারিভাবে দিবসটি জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে উদ্যাপিত হবে। আজ সরকারি ছুটি।
১৯২০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন বাঙালির মুক্তির সংগ্রামের অবিসংবাদিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর সাহসী ও আপসহীন নেতৃত্বে অনুপ্রাণিত হয়েই পাকিস্তানি ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে স্বাধীনতাসংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল বাঙালি জাতি।
যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি উদ্যাপনের জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দুই দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। দলটির সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো আলাদা কর্মসূচি পালন করবে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।
রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাঁর বাণীতে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শৈশব থেকেই ছিলেন অত্যন্ত হৃদয়বান, মানবদরদি কিন্তু অধিকার আদায়ে আপসহীন। স্কুলজীবন থেকেই তাঁর মধ্যে নেতৃত্বের গুণাবলি পরিলক্ষিত হয়। তিনি ছিলেন বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা এবং বাঙালি জাতীয়তাবাদের প্রবক্তা। এ দেশের মানুষের কাছে বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু এক ও অভিন্ন সত্তায় পরিণত হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর মমতা ছিল অপরিসীম। তাই তাঁর জন্মদিনকে শিশুদের জন্য উৎসর্গ করে আমরা জাতীয় শিশু দিবস ঘোষণা করেছি। এই দিনে আমি জাতির পিতার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত এবং আগামী দিনের কর্ণধার শিশু-কিশোরদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করছি।’ তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর অবিসংবাদিত নেতৃত্ব, সম্মোহনী ব্যক্তিত্ব ও ঐতিহাসিক ভাষণ সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিল। যার ফলে আমরা পেয়েছি স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশ।
দিবসটি উপলক্ষে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর এবং গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও মহান মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সপ্তাহব্যাপী পুস্তক ও তথ্যচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে সারা দেশে বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে প্রার্থনা হবে। বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশন দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার এবং জাতীয় দৈনিকগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করবে।
টুঙ্গিপাড়ায় কর্মসূচি: আজ সকাল ১০টার দিকে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করবেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁরা সেখানে ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেবেন। এ সময় তিন বাহিনীর একটি চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেলা ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে আয়োজিত শিশু সমাবেশ ও আলোচনা সভায় বক্তব্য দেবেন। পরে একই স্থানে বইমেলার উদ্বোধন ও সেলাই মেশিন বিতরণ করবেন তিনি।
আওয়ামী লীগের কর্মসূচি: দলটির দুই দিনের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকাল সাড়ে ছয়টায় বঙ্গবন্ধু ভবন ও সারা দেশে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল সাতটায় বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ। কাল শুক্রবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে হবে আলোচনা সভা। এতে সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এক বিবৃতিতে দিবসটি পালন উপলক্ষে দলের গৃহীত কর্মসূচি দেশবাসীর সঙ্গে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

হৃতিক-কঙ্গনার বাগদান!

বলিউডের তারকা হৃতিক রোশন আর কঙ্গনা রনৌত যখন উকিল নোটিশ দিয়ে লড়ছেন, ঠিক সেই সময়েই এই দুই যুযুধান তারকাকে নিয়ে চমকে যাওয়ার মতো খবর প্রকাশ করল বলিউডের সংবাদমাধ্যম বলিউড লাইফ। সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, ২০১৪ সালে নাকি বাগদান হয়েছিল হৃতিক রোশন ও কঙ্গনা রনৌতের! আর এই বাগদানের পুরো বিষয়টিই নাকি হয়েছিল খুব গোপনে! কাউকেই জানানো হয়নি, এমনকি কোনো মিডিয়াতেও তা আসেনি! সম্প্রতি কঙ্গনার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র এমনটাই দাবি করেছে।
শেষ পর্যন্ত হৃতিক-কঙ্গনার গোপন প্রেমের বিষয়টি আর গোপন রইল না! আর তা যেভাবে জানাজানি হলো—তারকাদ্বয়ের কেউই নিশ্চয়ই এমনটা চাননি। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, ঘটনা ঘটল তখনই, যখন দুজনে দুজনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে চলেছেন! আর এরই মধ্য দিয়ে উঠে আসছে দুজনের অনেক অজানা গল্প।

কঙ্গনার আইনি নোটিশ থেকে জানা গেছে, সুজানের সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ থাকার পরেও হৃতিক গোপনে সম্পর্ক রেখেছিলেন কঙ্গনার সঙ্গে! অনেকেই বলছেন তবে কি এই বিষয়টা নিয়েই দুজনের সম্পর্কের টানাটানি শুরু?
এদিকে মুম্বাই মিরর পত্রিকা জানিয়েছে, দুজনের মধ্যে যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল; সেটা কেউ কেউ জানতেন। কিন্তু তাঁরা যে গোপনে বাগদানটাও সেরে ফেলেছিলেন! তা একরকম অজানাই ছিল।

বিষয়টি অজানাই থেকে যেত যদি না কঙ্গনার এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু এ বোমাটি ফাটাতেন! তিনি জানিয়েছেন, ২০১৪ সালে নাকি কঙ্গনাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন হৃতিক! সেই বন্ধুকে নাকি কঙ্গনাই জানিয়েছিলেন যে সুজানেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় জানানোর পরই কঙ্গনাকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেন হৃতিক। প্রস্তাবটি শুনে যেন আনন্দে শূন্যে ভাসছিলেন কঙ্গনা! তাও কী যে-সে জায়গায়? প্রস্তাবটি নাকি হৃতিক দিয়েছিলেন ‘ভালোবাসার নগর’খ্যাত প্যারিসে!

যা-হোক, হৃতিক-কঙ্গনা সম্পর্কের ছাড়াছাড়ির প্রসঙ্গে কঙ্গনার ঘনিষ্ঠ সূত্রটি জানিয়েছে, ‘ব্যাং ব্যাং’ ছবির দৃশ্যধারণের কাজ থামিয়ে রেখে ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে হৃতিক কঙ্গনার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। কঙ্গনা তখন ছুটিতে নিউইয়র্কে। সেখান থেকেই হৃতিকের সঙ্গে ‘ব্যাং ব্যাং’ ছবির সহশিল্পী ক্যাটরিনা কাইফের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার কথা জানতে পারেন তিনি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ক্যাটরিনার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার বিষয়টি স্বীকার করে হৃতিক জানতে চান, কঙ্গনার সঙ্গে তাঁর বাগদানের বিষয়টি কেউ জেনেছে কি না। আর যখন কঙ্গনা তাঁকে জানান যে তিনি তাঁর পরিবারকে বিষয়টি জানিয়েছেন। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই হৃতিক তাঁকে জানিয়ে দেন যে আসলে কঙ্গনা তাঁর কথা ভুল বুঝেছেন! এমন কিছুই নাকি তিনি বোঝাতে চাননি!
অবশ্য এ পর্যন্ত বিষয়টা নিয়ে কেবল কঙ্গনার আইনি নোটিশ আর তাঁর ঘনিষ্ঠ সূত্রটির বরাতেই খবর প্রকাশিত হয়েছে। এ বিষয়ে হৃতিকের তরফ থেকে তিনি কিংবা অন্য কেউই এখন পর্যন্ত মুখ খোলেননি।
বলিউড লাইফ অবলম্বনে দেব দুলাল গুহ।

মেসিদের ধ্রুপদী ফুটবলে শেষ আটে বার্সেলোনা

বার্সেলোনা তাদের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলো থেকে বিদায় করে দিলো। কিন্তু ফুটবল যারা ভালোবাসেন তারা ভালোবাসতে বাধ্য আর্সেনালের কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গারকে। কারণ, হেরেও যে তিনি লিওনেল মেসিদের শৈল্পিক ফুটবলের গুনমুগ্ধ একজন! বললেন, “শিল্পকে আমাদের ভালোবাসতেই হবে। তাদের দুই তিনজন খেলোয়াড় তো সাধারণ জীবনকেও শিল্প বানিয়ে ফেলে।”

এই কথাটা নিশ্চয়ই ফুটবলের ইতিহাসে ঢুকে পড়েছে এর মধ্যে। নিজেদের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে বার্সেলোনার বিখ্যাত ত্রয়ী লিওনেল মেসি, লুই সুয়ারেস ও নেইমার পেয়েছেন গোল। তাতে গেলো রাতে ৩-১ গোলে জিতেছে কাতালানরা। বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা শেষ আটে উঠেছে ৫-১ গোলের অ্যাগ্রেগেটে। প্রথম লেগে গানারদের মাঠ থেকে ২-০ গোলের জয় তুলে এনেছিল তারা। দুটি গোলই করেছিলেন ৫ বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী আর্জেন্টাইন যাদুকর মেসি।

স্পেনে বিখ্যাত ত্রয়ীকে আদর করে ডাকা হয় এমএসএন নামে। কিন্তু আর্সেনালের বিপক্ষে এই ম্যাচে গোল অর্ডারে নামটা হবে এনএসএম- নেইমার, সুয়ারেস, মেসি। মরীয়া আর্সেনাল আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলেছে জয়ের জন্য। দারুণ গোছানো ছিল তারা। কিন্তু বার্সার ত্রিশুলে বিদ্ধ। যে ধ্রুপদী খেলা মেসিরা উপহার দিলেন তা শুধু জয়ের জন্য নয়। আসলে এটা শিল্পের জন্যই শিল্প!

আর্জেন্টিনা, উরুগুয়ে ও ব্রাজিলের তিন খেলোয়াড়, যারা বার্সার প্রাণ ভোমরা। এই লাতিন আমেরিকানদের কাছেই হার মানতে হয় আর্সেনালকে যেমন হার মানতে হচ্ছে সব প্রতিপক্ষকেই। গোলের মুখে তাদের বোঝাপড়াটাও দুর্দান্ত। এই মৌসুমে এর মধ্যে ১০৬ গোল হয়ে গেছে এই তিনের। তাদের সামনে আগের ১২২ গোলকে ছাড়িয়ে যাওয়ার হাতছানি। এখনো মৌসুমের দুই মাস বাকি। সেটা সহজেই হয়তো তারা পেরিয়ে যাবেন। আর বার্সেলোনাও গতবারের মতো ট্রেবল তুলে নেয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে অপ্রতিরোধ্য ভাবে।

আর্সেনালের ফেরার লড়াইয়ে প্রথম দেয়ালটা তুলে দেন নেইমার। ১৮ মিনিটে ডি বক্সে পাওয়া সুয়ারেসের দারুণ বলকে জালে জড়িয়ে লিড এনে দেন। বিরতির পর সমতায় আসে আর্সেনাল। গোল করেন মিশরের মিডফিল্ডার মোহাম্মদ এলনেনি। কিন্তু ৬৫ মিনিটে যাদু দেখান সুয়ারেস। দানি আলভেসের ক্রসে সিজার কিকে গোল করেন তিনি। বাকি ছিল মেসির গোল। খেলা শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে চোখ জুড়ানো গোল করেছেন তিনি। ডি বক্সে দুই ডিফেন্ডারের মাঝ থেকেও এগিয়ে আসা গোলকিপার দাভিদ অসপিনাকে দারুণভাবে বোকা বানিয়েছেন। তার মাথার ওপর দিয়ে জালে বল জড়িয়েছেন মেসি। আর্সেনালের কোচ ওয়েঙ্গার তো এমন খেলা দেখে মুগ্ধ হবেনই!

– See more at: http://www.kalerkantho.com/online/sport/2016/03/17/337067#sthash.NoQqfcu9.dpuf

চলচ্চিত্রে অবদানের স্বীকৃতি পেলেন পূর্ণিমা

বড় পর্দায় এখন হয়তো কাজ করছেন না, কিন্তু একসময় তো ঠিকই দাপিয়ে বেড়িয়েছেন। পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। এবার অন্যরকম এক স্বীকৃতি পেলেন অভিনেত্রী পূর্ণিমা। চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য তাকে বিশেষ সম্মাননায় পুরস্কৃত করেছে জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠন আমরা কুঁড়ি। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় সংগীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে পূর্ণিমার হাতে পুরস্কারটি তুলে দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। এখানে প্রতিশ্রুতিশীল কণ্ঠশিল্পী হিসেবে সম্মাননা পুরস্কার পেয়েছেন মৌটুসী পার্থ।

পূর্ণিমা জানালেন, বিশ্ব নারী দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়। তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, চলচ্চিত্রে অবদান রাখার জন্য বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার দেওয়া হলো আমাকে। ধন্যবাদ আমরা কুঁড়িকে। এদিকে ক্যান্ডি ক্রাশ নামের একটি ধারাবাহিকটির নাটকে অভিনয় করতে যাচ্ছেন পূর্ণিমা। এতে তার সহশিল্পী থাকছেন তৌসিফ মাহবুব, সুমন পাটওয়ারী, সাফা কবির, সাবিলা নূর ও সালমান মুক্তাদির। এটি লিখেছেন ইকবাল হোসাইন চৌধুরী, পরিচালনা করছেন রেদওয়ান রনি। ধারাবাহিকটি তৈরি হচ্ছে নাগরিক টিভির জন্য।

– See more at: http://www.kalerkantho.com/online/entertainment/2016/03/16/336626#sthash.iJc24b1M.dpuf

পড়শীকে স্টেজ থেকে নামিয়ে দিলেন উত্তেজিত জনতা!

দিন দিন বাড়ছে বিদেশি শিল্পীদের আনাগোনা। মানহীন গানের বাজারে বিরক্ত শ্রোতারা বিদেশি শিল্পীদের গান শুনতে কাড়ি কাড়ি টাকা খরচ করে যাচ্ছেনও নানা কনসার্টে।

দেশীয় শিল্পীরা এ বিষয়টিকে ভালো চোখে দেখেন না। তাদের এ নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই কনসার্ট আয়োজকদের প্রতি। এদিকে কনসার্ট আয়োজকদের দাবি- দেশের ব্যান্ড তারকাদের পর হাতে গোনা খুব অল্প শিল্পীই আছেন যারা লাইভ গান করে শ্রোতাদের সন্তুষ্ঠ করতে পারেন। অনেক জনপ্রিয় শিল্পীরাও স্টেজ শো করতে এসে আয়োজকদের নাক কেটেছেন- এমন নজির আছে অনেক।

সম্প্রতি এমনই এক কান্ড ঘটালেন জনপ্রিয় সংগীত তারকা পড়শী। সোমবার, ২২ ফ্রেব্রুয়ারি রাতে নাটোরের বড়াইগ্রামে নব নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলারদের আমন্ত্রণে সেখানকার পৌরসভা মাঠে এক কনসার্টে গাইতে গিয়েছিলেন ক্ষুদে গানরাজ খ্যাত এই কণ্ঠশিল্পী। কিন্তু সেখানে তার ব্যবহার ও গায়কীতে অসন্তুষ্ঠ হয়ে তাকে স্টেজ থেকে নামতে বাধ্য করেছেন স্থানীয় শ্রোতারা।

আয়োজকদের সূত্রে জানা যায়, কনসার্ট শুরু হওয়ার কথা ছিল সন্ধ্যা ৭টায়। পড়শী বিকেল ৪টায় সেখানে পৌঁছে গিয়েছিলেন। কিন্তু রাত ৮টায় স্টেজে ওঠার কথা থাকলেও তিনি স্টেজে ওঠেন রাত ১০টার পর। তাকে স্টেজে দেখেই শ্রোতারা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। কোনো রকমে গান শুরু করলেও দর্শক মজাতে পারেননি।

এক প্রতক্ষদর্শী অভিযোগ করে জানান, ‌‘পড়শী তার ‘তোমার চোখে আকাশ আমার’, ‘একা একা লাগে’, ‘খুঁজে খুঁজে’সহ পাঁচটি গান গান। কিন্তু শুরু থেকেই তার অপেক্ষা করতে করতে বিরক্ত শ্রোতারা তাকে নেমে যেতে বলেন। সেইসঙ্গে পড়শীর তাল-সুরের কোনোই মিল ছিল না গানে। ফলে দর্শক-শ্রোতারা ক্ষেপে যায়। পড়শীও তখন উল্টো ক্ষেপে যান। তিনি দর্শকদের উদ্দেশ্যে বলেন- ‘আমি কী নর্তকী না বাঈজি যে নেচে নেচে আপনাদের মন ভরাব। আমি গান করতে এসেছি। শুনতে ভালো না লাগলে চলে যান’! তখন উপস্থিথিরা ভীষণ ক্ষেপে যান। একপর্যায়ে স্থানীয় প্রশাসনের সহয়তায় কোনোরকমে পড়শী স্টেজ ছাড়তে বাধ্য হন।’

তিনি আরো বলেন, ‘পড়শী নেমে গেলেও পরিস্থিতি ছিলো নিয়ন্ত্রণের বাইরে। বড়াইগ্রাম পৌরসভার মেয়র বারেক সরদার উত্তেজিত দর্শকদের শান্ত করতে না পেরে নিজেই স্থান ত্যাগ করেন। পরে উপজেলা নির্বাহি অফিসার এবং স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তারা দর্শক-শ্রোতাদের কথা দিতে বাধ্য হন- বড়াইগ্রামে আর কখনো পড়শীকে গান গাইতে আনা হবে না।’

এ প্রসঙ্গে মেয়র বারেক সরদার জানান, ‘গতকাল রাতে যা ঘটে গেল সেটি সত্যি দুঃখজনক। পড়শীর অনেক ভুল ছিলো। বিশেষ করে দর্শকদের সঙ্গে তার ব্যবহার ছিলো হতাশাজনক। তারকাদের কাছে কেউ এমন আচরণ আশা করে না।’

এদিকে এ ঘটনার পর বিস্তারিত জানার জন্য পড়শীর মুঠোফোনে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। একইসাথে পড়শীর ফেরিভায়েড ফেসবুক, ফ্যান পেজ সবকিছু ডি-অ্যাক্টিভ করে রাখা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা চলছে সংগীতাঙ্গনে।
তবে ঘটনার সত্যতা ও বিস্তারিত জানতে পড়শীর মন্তব্য পাওয়া অবধি অপেক্ষা করছেন সবাই।

ওর জন্য ধর্ম ত্যাগ করেছি আর ওর বন্ধুরা মিলে কিনা আমাকে…

বিচিত্র মানুষের জীবন আর এই বিচিত্র জীবনের বহু বাক, জীবন আছে বলেই সমস্যা আছে। এই সব সমস্যার সমাধান ও আছে। কিছু কিছু সময় এই সব সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করে, মানুষের দ্বারা কিছু সমস্যা মাঝে মাঝে জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলে। এই সব ঝামেলা মোকাবেলা করে জীবনকে এগিয়ে নিতে হবে। আমি সোমা কামাল সবাইকে সবসময় এটাই…

টি-টোয়েন্টিতে এই প্রথম যে রেকর্ড করল বাংলাদেশ।

মাথায় হাত দিয়ে গ্যালারিতে বসেছিলেন দর্শকরা। কারো চোখে অবিশ্বাস, কারো ভ্রু কুঁচকে বিরক্তিতে। স্টেডিয়ামের গ্যালারি কিংবা টেলিভিশনের সামনে বসা দর্শক, সবার চোখে মুখে যেন একটাই প্রশ্ন- কী হলো বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের?
হতাশা আর আক্ষেপ ছাড়া কিছু ছিল না। খেই হারিয়ে ফেলেছিল বাংলাদেশ। ১০ ওভার শেষেও রানটা ছিল ২ উইকেটে ৭৪। ওভারপ্রতি ৭-এর ওপরে। ওপেনার মোহাম্মদ মিথুনও আশা দেখাচ্ছিলেন কিছু একটা করার। কিন্তু সেখান থেকে বাংলাদেশ ইনিংস শেষ করল ১৩৩ রানে।

গত ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে হতাশাজনক পরাজয়, সেটি ভুলিয়ে দেয়ার জন্য এর চেয়ে ভালো ম্যাচ আর হতে পারত না। সেটিতেও নিজেদের ইনিংস শেষে পরাজয়ের চোখরাঙানির সামনে বাংলাদেশ। তবে ব্যাটিং শেষে যা একটু আশা জাগছে, তার জন্য মাহমুদউল্লাহকে ধন্যবাদ দিয়ে কি পারা যায়? পরাজয় ভুলিয়ে দিলেন টাইগাররা।

শেষ ওভারে এক চার, এক ছয়ে এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানের ব্যাট থেকে ১৭ রান না এলে করুণ দেখাত বাংলাদেশের ইনিংসটিকে। টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিল সংযুক্ত আরব আমিরাত। সৌম্য-মিঠুনের

ব্যাটে সুন্দর সূচনাই এসেছিল। পাওয়ার প্লে-র ছয় ওভারেই ৪৮ রান করে ফেলেছিল দল। কিন্তু প্রথম ধাক্কাটা ৬ষ্ঠ ওভারেই।

গত কয়েকটি ম্যাচে কেন যেন বারবার ‘২০’-এর ঘরে গিয়ে আউট হয়ে যাচ্ছিলেন সৌম্য, আজও কিন্তু তাই। ১৪ বলে ২১ রানের ঝকঝকে ইনিংসটি সুন্দর কিছুর প্রত্যাশা জাগিয়েই শেষ। গত ম্যাচে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বড় ইনিংসটা খেলা সাব্বিরও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি আজ।

৭-৮ ওভারের গল্পটা মোহাম্মদ মিঠুনের নিজেকে চেনানো আর মুশফিক-সাকিবদের হতাশার। শুধু অনুশীলনে ভালো করছেন বলেই মিঠুনকে দলে সুযোগ দেয়ায় কোচ ও দলের ব্যবস্থাপনার কত সমালোচনা গত কদিন ধরে। সেটিরই জবাব দিয়ে দিলেন মিঠুন। দুই ছক্কায় উজ্জ্বল ইনিংসে ৪১ বলে ৪৭ রান করেছেন বাংলাদেশ ওপেনার।

মিঠুন আউট হতেই যেন পথ হারায় বাংলাদেশ ইনিংস। মুশফিক পারলেন না, সাকিবও ব্যাটে ব্যর্থ। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের এই দুই ভরসার ফর্মে ফেরা খুব বেশিই জরুরি হয়ে উঠেছে।

সাকিবরা যা পারেননি, সেটিই শেষদিকে কিছুটা করার চেষ্টা করেছেন মাহমুদউল্লাহ। শেষ ওভারের ওই ১৭ রান তো ছিলই, সেই মুহূর্তে ২৭ বলে ৩৬ রানের ইনিংস খেলেছেন মাহমুদউল্লাহ। তার ইনিংসই এখন আশা জাগাচ্ছে বাংলাদেশকে।

এমনটাই তো চেয়েছিলেন টাইগার ভক্তরা। চেয়েছিল লাল সবুজের বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে শেষদিকে সময়োপযোগী এক ইনিংসে বাংলাদেশকে লড়ার মত রান এনে দিয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। ফিল্ডিংয়ে নিলেন দারুণ এক ক্যাচ। বল হাতে ২ উইকেট। অলরাউন্ড নৈপুণ্যে এবারের এশিয়া কাপে বাংলাদেশ পেল প্রথম জয়।

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে এশিয়া কাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ৫১ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৩৩ রান তুলেছিল বাংলাদেশ। আমিরাত ১৭.৪ ওভারে গুটিয়ে যায় ৮২ রানে।

টি-টোয়েন্টিতে এই প্রথম বোলিং করে প্রতিপক্ষকে অল আউট করল বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সবচেয়ে কম পুঁজি নিয়ে জয়ও এটিই। ২০১২ সালে বেলফাস্টে আয়ার‌ল্যান্ডের বিপক্ষে ১৪৬ রান করে মাশরাফিরা জিতেছিল ১ রানে। এবার সংযুক্ত আরব আমিরাতকে শোচনীয়ভাবে হারিয়ে এশিয়া কাপে রাজসিক প্রত্যাবর্তন করলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।