রোদে পোড়া ত্বকের ক্ষতি দ্রুত সেরে তোলার ঘরোয়া উপায়! (ভিডিও সহ)

42

ত্বকের রোদে পোড়া সমস্যা। সারাদিন আনন্দে রোদে ঘোরাঘুরি করার পর বাসায় ফিরে অনেকেই ত্বকের ক্ষতিটা দেখতে পান। তখন এই ত্বকের ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার জন্য পরিশ্রম করতে থাকেন। কিন্তু আপনি চাইলে খুব সহজ, মাত্র ১ টি উপায়ে ত্বকের এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারেন। জানতে চান কীভাবে? চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক।
যা যা লাগবেঃ
– ১ টেবিল চামচ বেসন
– ১ টেবিল চামচ গুঁড়ো দুধ
– আধা টেবিল চামচ মধু
– আধা টেবিল চামচ লেবুর রস
– ২ টেবিল চামচ লিক্যুইড দুধ

পদ্ধতি ও ব্যবহারবিধিঃ

– প্রথমে একটি পরিষ্কার বোলে বেসন, গুঁড়ো দুধ, মধু ও লেবুর রস একসাথে খুব ভালো করে মিশিয়ে ঘন মিশ্রন তৈরি করে নিন।

– মুখ খুব ভালো করে ধুয়ে এই মিশ্রণটি ব্রাশের মাধ্যমে বা আঙুলের সাহায্যে পুরো ত্বকে লাগিয়ে নিন।

– প্রতি ৫ মিনিট পরপর যখন মাস্কটি কিছুটা শুকিয়ে আসবে তখন লিক্যুইড মিল্ক দিয়ে নিন যাতে ত্বকে মাস্কটি শুকিয়ে না যায়। এভাবে ২০ মিনিট রাখুন।

– ২০ মিনিট পর আঙুল দিয়ে আলতো করে পুরো ত্বক ম্যাসেজ করে নিন ৫ মিনিট। যদি খুব বেশি শুকনো লাগে মাস্কটি তাহলে একটু লিক্যুইড দুধ নিয়ে ম্যাসেজ করুন।

– এরপর পানি দিয়ে খুব ভালো করে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। প্রথমবার ব্যবহারেই বেশ ভালো ফলাফল পাবেন। এই গ্রীষ্মকালে সপ্তাহে ১ বার এই মাস্কটি ব্যবহার করলে ত্বকের এই রোদে পোড়ার যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে পারেন সহজেই।

পিগমেন্টেশনের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে যা করবেন!

41

কাজের তাগিদে আজকাল মেয়েদের বাইরে বেরোনো নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাড়িয়েছে। ফলে প্রখর রোদ, রাস্তাঘাটের দূষিত বাতাস এবং ধুলাবালি মুখের স্বাভাবিক সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়। এজন্য পিগমেন্টেশন সমস্যায় ভূগছেন এরকম মেয়ের সংখ্যা নিতান্তই কম নয়।
অনেকে নানা ভাবে এর প্রতিরোধ করার চেষ্টা করে থাকেন। নিচের কিছু নিয়ম মেনে চলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন:

১. রোদে বাইরে বেরনোর আগে ভাল করে সানস্ক্রিন লাগিয়ে বেরোন। আপনার ত্বকের প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী উচ্চ এসপিএফ-যুক্ত সানস্ক্রিন লাগাবেন।

২. চালের গুঁড়ার সঙ্গে টক দই মিশিয়ে একটি ফেসিয়াল স্ক্রাব তৈরি করুন। এই স্ক্রাবটি সপ্তাহে এক থেকে দু’বার ব্যবহার করবেন। শুধু ডার্ক প্যাচগুলোর উপরেই এই প্যাকটি লাগাবেন। ছোট ছোট সার্কুলার মুভমেন্টে ওই জায়গাগুলোর উপরে লাগিয়ে নিন। কিছুক্ষণ রেখে দিয়ে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৩. মধু ও লেবুর রস সমপরিমাণে মিশিয়ে ফেলুন। প্রতিদিন নিয়ম করে ডার্ক প্যাচের উপরে লাগাতে থাকুন। ১৫ মিনিট পরে পানি দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন।

৪. গ্রাউন্ড আমন্ড আর টক দই একসঙ্গে মিশিয়ে নিন ভাল করে। এই মিশ্রণটি মুখে লাগাবেন। ১৫ মিনিট পরে হালকা করে ঘষে নিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

স্বাস্থ্য উজ্জ্বল ত্বক পেতে রাতে এই ৬টি কাজ করছেন তো?

40

সারাদিন বাইরে থাকার কারণে আমাদের ত্বক এবং চুল সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে। বাইরে ধুলোবালি, রোদ, সূর্যের তাপ সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলে আমাদের ত্বক এবং চুলে। আমরা যখন রাতে ঘুমাই তখন আমাদের ত্বক নিজে থেকেই নিজেকে পুনরুজ্জীবিত করে। তাই রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে প্রয়োজন পড়ে একটু বাড়তি যত্নের। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ত্বকের যত্নে করুন এই কাজগুলো।
১। মেকআপ তুলে ফেলুন –
আলসেমী করে অনেকে মেয়েরাই মেকআপ না তুলে ঘুমিয়ে পড়ে। আর তখনই ত্বকের সবচেয়ে বড় ক্ষতি করে থাকেন তাঁরা। মেকআপের কারণে ত্বকের ছিদ্রে ময়লা জমে বন্ধ হয়ে যায়। যা আস্তে আস্তে ত্বকে বলিরেখা ফেলে দিয়ে থাকে। তাই ঘুমাতে যাওয়ার আগে অবশ্যই মেকআপ তুলে ফেলুন।

২। দুটি বালিশ ব্যবহার করুন –
চোখের নিচের ফোলা কমাতে দুটি বালিশ ব্যবহার করুন। দুটি পাতলা বালিশে ঘুমানোর অভ্যাস করুন। মধ্যাকর্ষণ শক্তি ত্বক এবং চোখে রক্ত চলাচল সচল রাখে যার কারণে চোখের নিচে পানি জমতে পারে না।

৩। টোনার ব্যবহার করুন –
রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে টোনার ব্যবহার করুন। টোনার ত্বকের PH লেভেল ঠিক রেখে ব্যাকটেরিয়া বিরুদ্ধে কাজ করে থাকে। বাজারে নানা ব্যান্ডের টোনার পাওয়া যায়। বাজারের টোনার ব্যবহার করতে না চাইলে গোলাপ জল ব্যবহার করতে পারেন। তুলোর বল গোলাপ জলে ভিজিয়ে ত্বকে লাগান। এটি ত্বকে শুকাতে দিন।

৪। হ্যান্ড ক্রিম ব্যবহার করুন –
হাত নরম কোমল রাখতে প্রতি রাতে হ্যান্ড ক্রিম ব্যবহার করুন। সম্ভব হলে কুসুম গরম পানিতে সাবান বা শ্যাম্পু গুলিয়ে নিন। এরপর এতে হাত দুটি ভিজিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। তারপর টাওয়েল দিয়ে মুছে কোন ভাল মানের হ্যান্ড ক্রিম লাগান। হাতে বলিরেখা পড়া প্রতিরোধ করবে এই হ্যান্ড ক্রিম

৫। পেট্রোলিয়াম জেলী ব্যবহার –
হাতের যত্নের পাশাপাশি পায়েরও যত্নের প্রয়োজন রয়েছে। পায়ে পেট্রোলিয়াম জেলী অথবা ফুট ক্রিম লাগিয়ে নিন। এটি পা ফাটা রোধ করবে সাথে সাথে পায়ের ত্বককে নরম কোমল করে তুলবে।

৬। চুল বাঁধা –
কিছু মানুষ চুল খোলা রেখে ঘুমিয়ে থাকেন। কিন্তু চুল বেঁধে ঘুমানো চুলের জন্য ভাল। ঘুমাতে যাওয়ার আগে ভাল করে চুল আঁচড়ে নেওয়া উচিত। এতে মাথার তালুতে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকে। এরপর উচু করে খোঁপা বা বেনী করে ফেলুন। চুলে ময়লা এবং তেল থাকে যা ত্বকে চলে এসে ত্বকে ব্রণ তৈরি করে থাকে।

কমল ত্বক পেতে রূপচর্চা করুন পাকা কলা দিয়ে

39
কলা অতিরিক্ত পেকে গেলে আমরা ফেলে দিই। কিন্তু এই পাকা কলা আমাদের দিতে পারে কোমল ও সুন্দর ত্বক। জেনে নিন কীভাবে প্রাকৃতিকভাবে ত্বক সুরক্ষা করে পাকা কলা –
বলিরেখা দূর করতে –
পাকা কলার সঙ্গে ১ টেবিল চামচ মধু মেশান। মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত করলে দূর হবে ত্বকের বলিরেখা।

ডার্ক সার্কেল দূর করতে –
প্রতিদিন ৫ মিনিট চোখের আশেপাশে পাকা কলা ঘুষুন। ধীরে ধীরে কমে যাবে চোখের চারপাশের কালো দাগ।

শুষ্ক ত্বকের সুরক্ষায় –
ত্বককে অতিরিক্ত শুষ্ক না করেই ত্বকের অপ্রয়োজনীয় তেল শোষণ করে পাকা কলা। ৩ টেবিল চামচ লেবুর রসের সঙ্গে একটি পাকা কলা মেশান। ১০ মিনিট মুখে লাগিয়ে রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

এক রাতেই উজ্জ্বল ত্বক পাওয়ার ঘরোয়া উপায়!

38
সারা দিনের ব্যস্ততার কারণে আমরা ত্বকের সঠিক যত্ন নিতে পারি না। এ ক্ষেত্রে রাতে ঘুমানোর আগে প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি ফেসপ্যাক ব্যবহার করতে পারেন। দেখবেন, মাত্র এক রাতেই আপনার ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল ও মসৃণ।
ঘরোয়া কোন উপায়ে ত্বক উজ্জ্বল glowing skin করবেন, তার একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে বোল্ডস্কাই ওয়েবসাইটের লাইফস্টাইল বিভাগে। আপনি চাইলে এই পরামর্শগুলো একবার দেখে নিতে পারেন।

হলুদের গুঁড়া :
এক টেবিল চামচ হলুদের গুঁড়ার সঙ্গে সামান্য গোলাপজল মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। রাতে ঘুমানোর আগে এই প্যাক মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার গোলাপজল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

আলুর রস :
অর্ধেকটা আলু ভালো করে ব্লেন্ড করে এর সঙ্গে এক টেবিল চামচ গোলাপজল মিশিয়ে মুখে লাগান। ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার আলুর রস দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

লেবুর রস :
লেবুর রস তুলায় নিয়ে সরাসরি মুখে লাগান। ১০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকে প্রাকৃতিক ব্লিচের কাজ করে।

টক দই :
দুই টেবিল চামচ ঠান্ডা টক দইয়ের সঙ্গে এক টেবিল চামচ ঠান্ডা দুধ মিশিয়ে মুখে লাগান। শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এবার ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

চন্দনের গুঁড়া :
এক টেবিল চামচ চন্দনের গুঁড়ার সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে মুখে লাগান। ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

‘রোমান সম্রাটে’র সঙ্গে ড. ইউনূস

৩৭

খুব বেশি দিন হয়নি, ন্যু ক্যাম্পে গিয়ে বার্সেলোনাকে জানিয়ে এসেছিলেন ক্লাবটির প্রতি বাংলাদেশের মানুষের ভালোবাসার কথা। বার্সেলোনার পর এবার ড. মুহাম্মদ ইউনূস গেলেন রোমে। সেখানে গিয়ে রোমান সম্রাটের সঙ্গে দেখা করবেন না, তা কি হয়! রোমের ক্লাব এএস রোমার কিংবদন্তির ফ্রান্সেসকো টট্টির সঙ্গে ছবিও তুলেছেন বাংলাদেশের একমাত্র নোবেল বিজয়ী।
ইতালিয়ান সাংবাদিক এনজো কারসিও ফেসবুকে ছবিটি দিয়েছেন। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ইতালিয়ান কিংবদন্তির সঙ্গে চিরচেনা প্রাণখোলা হাসিতে দাঁড়িয়ে আছেন ড. ইউনূস। ছবির ক্যাপশনটাও মজার, ‘তিনিও (টট্টি) সোশ্যাল বিজনেস শিখতে চান।’
সামাজিক ব্যবসার ধারণাটা ছড়িয়ে দিতেই ইতালিতে গিয়েছিলেন ড. ইউনূস। জাতিসংঘের অঙ্গসংগঠন ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার অর্গানাইজেশনের (ফাও) আয়োজনে ‘সোশ্যাল বিজনেস ফর জিরো হাঙ্গার’ কনফারেন্সের প্রধান আলোচক ছিলেন। যে ক্ষুদ্রঋণের ধারণা দিয়ে বাংলাদেশকে বদলে দিতে চেয়েছিলেন, সেই একই ধারণার গান শুনিয়েছেন তিনি রোমের অনুষ্ঠানটিতেও। বিশ্বজুড়ে ক্ষুধা নিবারণের জন্য করণীয় সম্পর্কেও কথা বলেছেন ৭৫ বছর বয়সী উদ্যোক্তা অর্থনীতিবিদ।
এ ছাড়া ইতালির শহর পিস্তোইয়ার মেয়রের আয়োজনে এক অনুষ্ঠানেও যোগ দেন ড. ইউনূস। সেখানে তাঁকে সম্মানসূচক নাগরিকত্বও দেওয়া হয়েছে। সূত্র: ফেসবুক, মোহাম্মদইউনুসডটঅরগ।

আবাহনীকে সহজেই হারাল মোহামেডান

আবাহনীকে ৮ উইকেটে সহজেই হারাল মোহামেডান।আবাহনীকে ১৮৩ রানে শেষ করে দিয়েই জয়ের ক্ষেত্রটা তৈরি করে দিয়েছিলেন বোলাররাই। বাকি কাজটা খুব ভালোভাবেই শেষ করলেন ব্যাটসম্যানরা। ৩৭ বল বাকি রেখে মাত্র ২ উইকেট খুইয়েই মোহামেডানকে তাঁরা পৌঁছে দিলেন জয়ের বন্দরে। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর লড়াইয়ে একেবারেই একতরফা জয় পেল আজ মোহামেডান। মোহামেডানের শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যান উপুল থারাঙ্গার…

স্বাস্থ্যবটিকা ® ব্রোন স্মিথ

35

আঁশযুক্ত খাবার বেশি খেলে কি রক্তচাপ কমবে?
উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের ওপর এক গবেষণায় দেখা যায়, ফাইবার বা আঁশযুক্ত খাবার খেলে তাঁদের সিস্টোলিক রক্তচাপ ১০ মাত্রা এবং ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ ৫ মাত্রা পর্যন্ত কমে। ফলমূল, শাকসবজি এবং পূর্ণ দানাদার শস্যে আঁশ পাওয়া যায়।

‘স্বাস্থ্যবটিকা’র লক্ষ্য রোগনির্ণয় গোছের কিছু নয়

গরমে ত্বকের ৫ সমস্যা

34
গরম, রোদ আর ঘামের কারণে ত্বকের নানা ধরনের সমস্যা হতে পারে। তাই এ সময় ত্বকের বাড়তি যত্ন প্রয়োজন। জেনে নিন ত্বকের গ্রীষ্মকালীন কয়েকটি সমস্যা ও প্রতিকার:
ঘামাচি: ঘামাচি বা হিট র্যা শ প্রায় সবার হতে পারে। অতিরিক্ত পরিশ্রম, ঘাম ও আবদ্ধ জামাকাপড় এ সমস্যার জন্য দায়ী। ঘাড়, কুঁচকি, পিঠ, বগল ও বুকে ঘামাচি বেশি হয়। এটি প্রতিরোধের জন্য অতিরিক্ত গরম পরিবেশ এড়িয়ে চলুন, ঢিলেঢালা সুতি পোশাক পরুন, নিয়মিত গোসল করুন। ঘামাচির সমস্যায় ক্যালামিন লোশন ব্যবহার করা যায়, পুঁজ হলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ী অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম ব্যবহার করতে হবে।
ছত্রাক সংক্রমণ: গরমে ঘামে ভিজে ত্বকে ছত্রাক সংক্রমণ বেড়ে যায়। অতিরিক্ত ঘাম হলে মুছে ফেলতে হবে। পোশাকও পাল্টানো উচিত। আক্রান্ত স্থানে পানি ও সাবান ব্যবহার কমিয়ে দিতে হবে। ছত্রাকনাশক ওষুধ ব্যবহারের ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।
ব্রণ: গরমে প্রদাহসহ ব্রণের প্রবণতাও বাড়ে। ভালো করে বারবার মুখ ধুতে হবে যেন তেল-ময়লা জমে না থাকে। প্রসাধনীর ব্যবহার কমিয়ে ফেলুন। বাইরে থেকে এলে মুখমণ্ডলে ঠান্ডা পানির ঝাপটা বা বরফ ঘষে নিতে পারেন।
সানবার্ন: প্রখর রোদে ত্বক লাল হয়ে একটু ফুলে যেতে পারে ও ব্যথাও হতে পারে। ফরসা ত্বকে ও শিশুদেরই বেশি সানবার্ন হয়। তীব্র গরমে বাইরে থাকার দু-তিন ঘণ্টা পর থেকে শুরু হয়ে ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত থাকতে পারে এ সমস্যা। পাশাপাশি জ্বর, ফোসকা বা বমির ভাবও হতে পারে। রোদে মুখ লাল হয়ে গেলে অতিসত্বর ঠান্ডা পানির ঝাপটা নিন। প্রচুর পানি পান করুন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
অ্যালার্জি: বিভিন্ন প্রসাধনসামগ্রীর রাসায়নিক পদার্থ সূর্যালোকের উপস্থিতিতে বিক্রিয়া করে অ্যালার্জিক প্রতিক্রিয়া করে। এতে ত্বকের প্রদাহ বা একজিমা দেখা দেয়। এ সময় প্রসাধনী ও সানব্লক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সতর্কতা জরুরি।
চর্ম বিভাগ, বারডেম হাসপাতাল

কী পোশাক পরবেন ঐশ্বরিয়া?

33

কান চলচ্চিত্র উৎসবে এবারও যাচ্ছেন ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। একটি প্রসাধনী প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে সেখানে হাজির হবেন তিনি। সাবেক এই বিশ্বসুন্দরী লালগালিচায় হাঁটবেন ১৩ ও ১৪ মে। আর তিনি কিনা এখনো হাত-পা গুটিয়ে বসে আছেন! উৎসবে কী পোশাক পরবেন, তা এখনো ঠিকই করেননি তিনি।

কিছুদিন আগে অবশ্য ঐশ্বরিয়া সাজপোশাক নিয়ে তাঁর উদাসীনতার কথা বলেছিলেন। কিন্তু তাই বলে এত বড় উৎসবে যাওয়ার আগে তাঁর কোনো প্রস্তুতিই থাকবে না?

কান চলচ্চিত্র উৎসবে মানুষের আগ্রহ শুধু সিনেমাতেই থাকে না। লালগালিচায় তারকাদের পোশাকেও আগ্রহীদের চোখ আটকে যায়। বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন প্রতিবছরই আকর্ষণীয় বেশভূষায় হাজির হন সেখানে।

এবার ১৩ ও ১৪ মে উৎসবের লালগালিচায় হাঁটবেন ঐশ্বরিয়া। সেই হিসাবে হাতে একদমই সময় নেই। অথচ এখনো নাকি তিনি কোনো পোশাক চূড়ান্ত করেননি।

ঐশ্বরিয়ার এমন কথা অনেকের কাছেই অবিশ্বাস্য। তবে তাঁর সাফ কথা, ‘আপনারা আমাকে নিয়ে যত খুশি তত তামাশা করতে পারেন। কিন্তু বাস্তবতা হলো, আমি আসলে খুব ব্যস্ত।’
আসন্ন ছবি ‘সবরজিত’-এর প্রচার নিয়ে খুব ব্যস্ত থাকার কথা জানিয়েছেন ঐশ্বরিয়া। কিন্তু তাই বলে কানের লালগালিচায় হাঁটার আগমুহূর্তে কোনো পোশাক ঠিক করেননি তিনি—এটা অনেকের কাছেই অবিশ্বাস্য।

কেউ কেউ ভাবছেন, হয়তো পোশাকের প্রতি সবার আকর্ষণ আরও বাড়ানোর জন্যই এই নায়িকা ইচ্ছা করে বিষয়টি গোপন রাখছেন।

আসল ঘটনা কী, কে জানে! আর এক দিন বাদেই দেখা যাবে ঐশ্বরিয়ার পরনে এবারের কান উৎসবের পোশাক।
হিন্দুস্থান টাইমস

রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতিপ্রাপ্ত খারাপ লোক আমি

32

২০১৪ সালের শ্রেষ্ঠ খল চরিত্রের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন অভিনেতা তারিক আনাম খান। ছবির নাম ‘দেশা দ্য লিডার’। গতকাল বুধবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে এ পুরস্কার নেন তিনি। জানালেন অনুভূতির কথা। মুঠোফোনে সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রাসেল মাহমুদ।

তারিক আনাম খানপুরস্কারপ্রাপ্তির অনুভূতি কেমন?
জাতির জনকের কন্যার হাত থেকে পুরস্কার নিতে গিয়ে ইমোশনাল হয়ে পড়েছিলাম।
স্বীকৃতিটা পেলেন খল চরিত্রের জন্য!
হ্যাঁ, এখন রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতিপ্রাপ্ত খারাপ লোক আমি। এ রকম চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে যদি খারাপকে দমনের শিক্ষাটা সমাজে ছড়িয়ে দেওয়া যায়, সেটা খারাপ কী? সমাজ ও শিল্পের জন্য সেটা বরং মঙ্গল বয়ে আনবে।
বাংলাদেশ আরেকজন দুর্ধর্ষ খলনায়ক পেতে যাচ্ছে?
আমি আসলে বৈচিত্র্যপিয়াসী অভিনেতা। একটি নির্দিষ্ট গণ্ডির ভেতরে আটকে থাকতে চাই না। পরিচালকেরা আমার চরিত্রগুলোকে যেভাবে সাজাবেন, আমার কাজ সেগুলোকে ফুটিয়ে তোলা।
অনেক ধরনের চরিত্রে অভিনয় করেন। খল চরিত্র কেমন লাগে?
আমার চেহারায় একটু খল খল ভাব আছে। এতে চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে সুবিধা হয়। তবে আমার কাছে চরিত্রই মূল।

শুটিংয়ে রক্ত ঝরল শাকিবের

৩১

‘বসগিরি’ ছবির অ্যাকশন দৃশ্য ধারণ করতে গিয়ে আহত হয়েছেন শাকিব খান। আহত হওয়ার পর প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আবারও ওই দৃশ্যটি ধারণ করা হয়। বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় তিন শ ফুট রাস্তার পাশে আলমপুরে জিয়া তালুকদার গ্রুপ ও বস গ্রুপের লড়াই চলছিল। এ দৃশ্য ধারণ করতে গিয়েই গতকাল বুধবার আহত হন নায়ক শাকিব খান।
‘বসগিরি’ ছবির একটি দৃশ্যে ক্রেনে ঝুলন্ত অবস্থায় শূন্য থেকে লাফিয়ে আরেকজনের কাঁধের ওপর দাঁড়াতে হবে শাকিবকে। এই দৃশ্যে সাধারণত সবাই ডামি ব্যবহার করেন। শাকিব ডামি নেননি। ক্রেন থেকে লাফ দেওয়ার সময় ক্রেনের ধাতব রশিতে বাড়ি খেয়ে কানের নিচের অংশ কেটে রক্ত বের হয়। জখম হওয়ার পর সেখানেই তাঁর প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা নেওয়ার প্রায় ঘণ্টা খানেক পর আবারও ওই দৃশ্যটি ধারণ করা হয়। আবারও নিজেই অংশ নেন শাকিব।
ডামির বদলে নিজেই ঝুঁকিপূর্ণ এ শট দিলেন কেন, জানতে চাইলে শাকিব বলেন, ‘পারফেকশনের জন্য। ডামি থেকে নিজে করলেই শটটা পারফেক্ট হয়।’
শামীম আহমেদ রনি পরিচালিত এ ছবিতে শাকিবের নায়িকা এখনো ঠিক হয়নি। শিগগির সংবাদ সম্মেলন করে নায়িকার নাম জানানো হবে।

সালমানের মায়ের সঙ্গে ইউলিয়া

৩০

বলিউড অভিনেতা সালমান খান এখন ব্যস্ত ‘সুলতান’ ছবির শুটিংয়ে। লুধিয়ানায় ‘সুলতান’ ছবির সেট থেকে গতকাল বুধবার মুম্বাই ফিরেছেন এই তারকা। কিন্তু খবর এটা নয়, খবর হলো মুম্বাই বিমানবন্দরে তিনি একা ছিলেন না। সঙ্গে ছিলেন কথিত প্রেমিকা ইউলিয়া ভেঞ্চুর ও মা সালমা খান। সাংবাদিকদের ক্যামেরায় ধরা পড়েন তিনি। দেশটির কয়েকটি গণমাধ্যমে তাঁদের কিছু ছবিও প্রকাশ হয়েছে। ছবি দেখে মনে হচ্ছে সালমানের মায়ের সঙ্গে বেশ ঘনিষ্ঠ ও মধুর সম্পর্ক ইউলিয়ার।
এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, বিমানবন্দরে অনেকক্ষণ একসঙ্গে ছিলেন সালমান খান ও ইউলিয়া ভেঞ্চুর। সেখানে সালমানের মায়ের হাত ধরে হাঁটছিলেন রোমানিয়ান এই মডেল ও টিভি তারকা। অনেক দিন ধরেই সালমানের সঙ্গে এই বিদেশিনীর প্রেমের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, ছাদনাতলায় বসছেন সালমান, আর পাত্রী নাকি ইউলিয়া ভেঞ্চুর। এ গুজবের সব শেষ খবর হলো, ৫০ বছর বয়সী ‘রজরঙ্গী ভাইজান’ এ বছরই বিয়ে করছেন। তবে তাঁদের বিয়ে হচ্ছে কি না, সেটা সময়ই বলবে। তবে এখন থেকেই যে ইউলিয়া সালমানের মায়ের মন জয় করতে চাইছেন, সেটা বোধ হয় আর ঘটা করে না বললেও চলে।

প্রাথমিকের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা কাল থেকে

29

সাংস্কৃতিক নানা চর্চার মধ্য দিয়ে ব্যক্তিত্বসম্পন্ন এবং উন্নত মানসিকতার মানুষ গঠন লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে দেশের সব সরকারি-বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের অংশগ্রহণে জাতীয় পর্যায়ে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। প্রতিযোগিতার কয়েকটি ধাপ পেরিয়ে ঢাকায় জাতীয় পর্যায়ে কাল শুক্রবার ও শনিবার এসব শিশুরা সংগীত, নৃত্য ও আবৃত্তির নানা বিভাগে পারফর্ম করবে।
এতে দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অংশ নিচ্ছে। কাল ও পরশু জাতীয় পর্যায়ের এ প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত বিজয়ী নির্বাচন করা হবে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার সেমিনার কক্ষে এ নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।
সৃজনশীল মানবিক বাংলাদেশ গড়ার আন্দোলনকে ত্বরান্বিত করা ও তৃণমূলের শিশুশিল্পীদের জাতীয় পর্যায়ে বিকাশের প্রত্যয়ে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে ‘বাংলাদেশের সকল সরকারি ও বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা আয়োজন’ কর্মসূচির আওতায় এ সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হচ্ছে। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় ও শিল্পকলা একাডেমির ব্যবস্থাপনায় সংগীত, আবৃত্তি, নৃত্য, অভিনয়সহ মোট ১১টি বিষয়ে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।
আগামী কাল ও পরশু সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত শিল্পকলা একাডেমিতে এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন জেলা ও মহানগরের ১ম ও ২য় স্থান বিজয়ী ১৫৬০ জন প্রতিযোগী। একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা ভবন, জাতীয় চারুকলা ভবন ও প্রশিক্ষণ ভবনে জাতীয় পর্যায়ের এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকেই প্রতিযোগীদের বিনোদনের জন্য একাডেমির নন্দন মঞ্চে থাকবে অ্যাক্রোবেটিক প্রদর্শনী ও সন্ধ্যা ৬টা থেকে একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে অ্যাক্রোবেটিক প্রদর্শনী প্রদর্শন করবে শিল্পকলা একাডেমির অ্যাক্রোবেটিক দল। জাতীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতায় ১১টি বিষয়ের প্রত্যেকটির ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অধিকারীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
সংবাদ সম্মেলনের উপস্থিত ছিলেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী, প্রযোজনা বিভাগের পরিচালক ইকবাল হোসেন, চারুকলা বিভাগের পরিচালক উত্পল কুমার দাস, প্রশিক্ষণ বিভাগের পরিচালক শাওকাত ফারুক, এই প্রতিযোগিতা কর্মসূচির পরিচালক সোহরাব উদ্দীন প্রমুখ

মধুচন্দ্রিমায় চটেছেন বিপাশা!

28

বেশ খোশমেজাজেই মধুচন্দ্রিমা কাটাচ্ছিলেন বিপাশা বসু। কিন্তু হঠাৎ মেজাজ গেল বিগড়ে। মালদ্বীপে মধুচন্দ্রিমায় গিয়ে আচমকাই মেজাজ হারালেন তিনি। অনেকে হয়তো ভাবছেন এরই মধ্যে ফুলের বাগানে সাপ ঢুকে গেছে! নতুন বরের সঙ্গে মন কষাকষি? নাকি অন্য কিছু?

না কোনো পারিবারিক অশান্তি নয়, বিপাশা চটেছেন ভক্তদের ওপর। মালদ্বীপের হোটেল রুমে রোজই নিত্যনতুন টাওয়েল আর্ট উপহার পাচ্ছেন নতুন দম্পতি। সেই আর্টের ছবি কোলাজ করে পোস্ট করেছিলেন ইনস্টাগ্রামে। কিন্তু সেই ছবিতে পড়েছে বেশ কিছু নেতিবাচক মন্তব্য। লোকে নানা আপত্তিকর কথা বলেছে তাঁর বর করণ সিং গ্রোভার সম্পর্কে। এসব মোটেও পছন্দ হয়নি বিপাশার। খেপেছেন বিপাশা। মেজাজ হারিয়ে বেশ লম্বাচওড়া একটা প্রতিক্রিয়াও লিখেছেন ফেলেছেন ইনস্টাগ্রামে।
সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া